মেহেরপুরের জোড়া খুনের রহস্য উম্মোচন

0
50

মেহেরপুর অফিস: মেহেরপুর সদর উপজেলা দরবেশপুর গ্রামের রোকনুজ্জামান রোকন (৩৬) ও হাসানুজ্জামান হাসান (৪৪) জোড়া খুনের মামলার বিষয়ে পুলিশ সুপার এস এম মুরাদ আলী প্রেসব্রিফিং করেছেন সাংবাদিকদের সাথে। গতকাল বুধবার সকালে পুলিশ সুপার কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সাথে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সংবাদ সম্মেলনে জেলা পুলিশ সুপার এসএম মুরাদ আলী জানান, আসামি হাকিম আদালতে ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় স্বীকার করে যে তার আপন বড় ভাই আব্দুল হামিদের (যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত কয়েদি বর্তমান জেলহাজতে আটক আছে) ছেলে মুক্তার হোসেনকে হত্যা ও শোলমারী বিলের অংশীদারিত্ব হতে বাদ পড়া এবং স্থানীয় নেতৃত্ব নিয়ে কোন্দলের প্রতিশোধ স্বরূপ রোকন ও হাসানকে হত্যার নির্দেশ দেন। পরবর্তীতে হামিদের নির্দেশানুযায়ী তার ভাগ্নে ইসমাইল হোসেন বাক্কাকে ৮০ হাজার টাকা দিয়ে ভাড়াটিয়া খুনি ভাড়া করে। রোকন ও হাসানকে হত্যা করার সময় হাকিম ও ইসমাইল হোসেন বাক্কাসহ ৮/৯ জন খুনি এই হত্যাকা- চালিয়েছে বলে আদালতের কাছে জবানবন্দি দিয়েছে। সেই অনুযায়ী মেহেরপুর পুলিশ ৮জনকে আটক করে আদালতে প্রেরণ করেছে। চাঞ্চলকর এই হত্যা মামলায় এ পর্যন্ত ৮ জনকে আটক করা হয়েছে, যারা এই হত্যার সাথে সরাসরি জড়িত ছিলো। আটক ৮ জনের মধ্যে ৩ জন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে ।
আসামিরা হলো আলমডাঙ্গা উপজেলার কুলপালা গ্রাম থেকে মৃত মোজ্জাম্মেল হকের ছেলে আব্দুল হাকিম ও তার ছেলে আব্দুস সালাম, সোনাপুর গ্রামের মৃত মুসা ম-লের ছেলে মামলত ম-ল, চুয়াডাঙ্গার আবুল কালাম কালু, দামুড়হুদা থানার রামনগর গ্রামের শহর আলীর ছেলে রনি আলমডাঙ্গা উপজেলার শিবপুর গ্রামের মইনুল হোসেনের ছেলে নুরুজ্জামান ও আটনগর গ্রামের মইরদ্দিনের ছেলে ফরিদ উদ্দিন।
পুলিশ সুপার উল্লেখ করেন যে, চাঞ্চলকর এই হত্যাকা-ে জড়িত অন্যতম আসামি ইসমাইল হোসেন বাক্কা গত ৪ অক্টোবর রাতে সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত হয়।
পুলিশ সুপার সাংবাদিকদের আরও জানান, হত্যাকা-ে জড়িত অন্যান্য সন্দিগ্ধ আসামিদের গ্রেফতারের জন্য অভিযান অব্যাহত আছে। তদন্তের স্বার্থে অন্য আসামিদের নাম পরিচয় এই মুহূর্তে গোপন রাখা হচ্ছে। এ সময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শেখ জাহিদুল ইসলাম, ডিআই-১ ফারুক হোসেন, মেহেরপুর জেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি তোজ্জাম্মেল আযম, মেহেরপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি ফজলুল হক মন্টু, সদর থানার ওসি শাহ দারা খান, ডিবি ওসি রবিউল ইসলামসহ সাংবাদিক ও পুলিশ কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, গত ১১ সেপ্টেম্বর রাতে মেহেরপুর সদর উপজেলর নতুন দরবেশপুর পূর্বপাড়া শোলমারী বিলের ধারে মৃত ইদ্রিস আলী বিশ্বাসের ছেলে রোকনুজ্জামান ও আবুল কালাম আজাদের ছেলে হাসানুজ্জামানকে সন্ত্রাসীরা কুপিয়ে হত্যা করে।