চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন দামুড়হুদার পারকৃষ্ণপুর-মদনার বীর মুক্তিযোদ্ধা নজীর

0

কুড়–লগাছি প্রতিনিধি: দামুড়হুদার পারকৃষ্ণপুর-মদনার ইউনিয়নের বীর মুক্তিযোদ্ধা নজির আহম্মদ ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহে….রাজেউন)। গত বুধবার দুপুর ২টার দিকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৬৭ বছর। গতকাল বৃহম্পতিবার বেলা ১১টার সময় নামাজে জানাজা শেষে বেদনাবিধূর পরিবেশে পারকৃষ্ণপুর-মদনার বড় বলদিয়া কবরস্থানে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় তার দাফন সম্পন্ন করা হয়েছে। বীর মুক্তিযোদ্ধা নজির আহম্মদের মৃত্যুতে বিভিন্ন ব্যক্তি ও মহল গভীর শোক প্রকাশ করে শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা প্রকাশ করেছে। চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের সংসদ সদস্য সদস্য হাজি আলী আজগার টাগর শোক জানিয়েছেন।
জানা গেছে, বীর মুক্তিযোদ্ধা নজির আহম্মদ কুড়–লগাছি ইউনিয়নের সদাবরী গ্রামের মৃত গোলাম রহমানের ছেলে। তিনি দীর্ঘদিন বাবা-মার গ্রাম ছেড়ে বড়বলদিয়া গ্রামে জমি কিনে শ্বশুরবাড়ির পাশেই বসবাস করে আসছিলেন। তিনি দীর্ঘদিন বিভিন্ন জনিত রোগে ভুগছিলেন। গত ২৫ নভেম্বর সোমবার রাত ১২টার দিকে হঠাৎ হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে পড়লে তাৎক্ষণিক তার পরিবার চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। ২দিন চিকিৎসার পর চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত বুধবার দুপুর ২টার দিকে তিনি হাসপাতালেই মারা যান। ওইদিনেই বিকেল ৪টায় পারকৃষ্ণপুর-মদনার বড় বলদিয়া নিজবাড়িতে লাশ নেয়া হয়। গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার সময় রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় পারকৃষ্ণপুর-মদনার বড় বলদিয়া কবরস্থনে তার দাফনকার্য সম্পন্ন করা হয়েছে। সেখানে তাকে শ্রদ্ধা জানান দামুড়হুদা উপজেলা নির্বাহী অফিসার এসএম মুনিব লিংকন, দামুড়হুদা উপজেলা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ সুকুমার বিশ্বাস, দামুড়হুদা উপজেলা মডেল থানার তদন্ত অফিসার জাহাঙ্গীর, পারকৃষ্ণপুর-মদনা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জেলা আ.লীগেরে শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক এএসএম জাকারিয়া আলম। দামুড়হুদা উপজেলার সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আছের উদ্দীন, বীর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বিল্লাল হোসেন, মুক্তিযোদ্ধা মশিউর রহমান, তমসের আলী, ফজল মোল্লা, আব্দুল হান্নার, সুকলাল মোল্লা, রেজাউল করিম, সাইদুর রহমান, রেজাউল ফকির, আব্দুল খালেক, ফজলুল হক, নুর হোসেন, ইকলাচ আলী, পীর মহাম্মদ, শওকত আলী, আলাউদ্দীন, এরশাদ আলী, আশরাফ আলী, জামাল হোসেন, নুর ইসলাম, আবু হাসেম, আব্দুর রহমান, আজিমুউদ্দীন, আনিছুর রহমান, সিরাজ হোসেন। এছাড়াও সাবেক শিক্ষক হাবিবুর রহমান হবি, ফয়সাল আহম্মদ, আসাদুল হক, বিপ্লব, আনোয়ার হোসেন, শিক্ষক আপেল মাহমুদ, খয়ের আহম্মদসহ বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ। পরে চুয়াডাঙ্গা পুলিশ লাইনের একদল চৌকস পুলিশ তাকে গার্ড অব অনার প্রদান করে। গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় পারকৃষ্ণপুর-মদনার বড় বলদিয়া কবরস্থনে তার দাফনকার্য সম্পন্ন করা হয়েছে। মৃত্যুকালে তিনি ২ ছেলে, ২ স্ত্রী ও ১ মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

Loading Facebook Comments ...

প্রত্যুত্তর দিন

অনুগ্রহ করে আপনার মন্তব্য লিখুন!
অনুগ্রহ করে আপনার নাম লিখুন